ম`হামা`রী করোনার কারণে দেশে অ`স্থিতিশীল পরিবেশ বি’রাজ করছে সারা দেশেই। সিলেটে ত্রাণের ৩০ কেজি চালের বস্তা থেকে ২-৩ কেজি গা`য়েব হ’য়ে যাচ্ছে। বস্তায় চাল কম থাকার ব্যাপারে কোনো স`দুত্ত`রও দিতে পারছেন না খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তরা। ফলে চাল বি`তরণ করতে গিয়ে বি`পাকে পড়’ছেন জনপ্রতিনিধিরা।

সিলেট সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ডে ত্রাণের চাল বিত’রণের সময় ভ’য়াবহ এই অনিয়মের বি’ষয়টি ধ`রা পড়ে বলে জানা যায়। শোনা যায় বস্তায় ক`ম থাকায় মেয়রের নির্দেশে চাল বি’তরণ ব`ন্ধ রেখেছেন স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সান্তনু দত্ত সন্তু।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সান্তনু দত্ত সন্তু জানান, তার ওয়ার্ডের জন্য ৪ টন চাল ব`রাদ্দ দেওয়া হয়। ৩০ কেজি করে ১৩৩ বস্তায় ৪ টন চাল থাকার কথা। চাল বি’তরণ করতে গিয়ে দেখেন বেশিরভাগ বস্তায় ২-৪ কেজি চাল ক`ম। বি’ষয়টি তিনি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে অ`বগত করলে তিনি চাল বি`তরণ ব`ন্ধ রাখার নি`র্দেশ দেন বলে জানা যায়।

সিলেটের ভারপ্রাপ্ত জে’লা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মনোজ কান্তি দাস চৌধুরী জানান, চালগুলো চট্টগ্রাম থেকে এসেছে। আসার সময় বস্তা থেকে কিছু চাল প`ড়ে গিয়ে ক`মতে পারে। কিন্তু সকল বস্তায় চাল ক`ম থাকার বি’ষয়টি র`হস্যজ`নক বলে জানান তিনি। এ ব্যাপারে গুদামের দা`য়িত্বে যিনি ছিলেন তাকে জি`জ্ঞাসা`বাদ করা হবে বলে জানান তিনি।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, শুধু ১৩নং ওয়ার্ড নয়, ১৬, ১৭ ও ২০নং ওয়ার্ডে বরাদ্দকৃত চালের বস্তায় ক`ম পাওয়া গেছে বলে অ`ভিযোগ করেন তিনি।

বস্তায় চাল ক`ম থাকায় বিতরণ করতে গিয়ে কাউন্সিলররা বি`পাকে পড়’ছেন বল জানায় তারা। এই চাল চো`রের গল্প আজকের নয়, শুরু থেকেই এই গল্প সুন্তে সুন্তে সাধারণ মা’নুষ আজ বি`রক্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here