দেশের বাজারে আবারও বাড়লো স্বর্ণের দাম। প্রতি ভরি স্বর্ণে ৩ হাজার ৭৯০ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতি।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। নতুন দাম অনুযায়ী দেশের বাজারে প্রতি ভরি স্বর্ণের সর্বোচ্চ দাম হবে ৬৪ হাজার ১৩০ টাকা।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এখন থেকে ২২ ক্যারেটের প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম ৫ হাজার ৫০০ টাকা। ২১ ক্যারেটের দাম হবে গ্রাম প্রতি পাঁচ হাজার তিনশো টাকা। একই ভাবে ১৮ ক্যারেটের দাম চার হাজার ৮৭০ এবং সনাতন পদ্ধতিতে তৈরি স্বর্ণের দাম হবে তিন হাজার ৭৭৫ টাকা।

দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ছে। সব মানের স্বর্ণ ভরিতে ৩৭৯০ টাকা বাড়িয়েছে জুয়েলার্স সমিতি। নতুন দাম কার্যকর হচ্ছে আজ থেকেই। এটিই দেশের ইতিহাসে স্বর্ণের সর্বোচ্চ দাম বৃ’দ্ধি। নতুন করে দাম বাড়ানোর পর বাজারের স্বর্ণের ভরি ছাড়িয়ে যাবে ৬৩ হাজার টাকা।

ক’রোনা পরিস্থিতির মধ্যেই অস্থির হয়ে উঠেছে স্বর্ণের বাজার। দুই মাসের ব্যবধানে আবারও বাড়ছে দাম। মূল্যবান এই ধাতুর দাম, এবার দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ পরিমাণে বাড়ানো হয়েছে।

বুধবার দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় জুয়েলার্স সমিতি। ২২, ২১, ১৮ ক্যারেট ওজনের স্বর্ণের ভরিতে দাম বাড়ছে ৩ হাজার ৭৯০ টাকা।

এর আগে দেশের বাজারে ৬১ হাজারের ও’পরে কখনই উঠেনি এর দাম। আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করেই দাম বাড়ানো হয়েছে বলে দাবি জুয়েলার্স সমিতির।

একই সাথে দাম বাড়ানো হয়েছে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের। তবে দাম অপরিবর্তিত রয়েছে রুপার।
জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতি ভরি ২২ ক্যারেটে ৯১ দশমিক ৬ শতাংশ, ২১ ক্যারেটে ৮৭ দশমিক ৫ শতাংশ, ১৮ ক্যারেটে ৭৫ শতাংশ বিশুদ্ধ সোনা থাকে। সনাতন পদ্ধতির সোনা পুরনো অলঙ্কার গলিয়ে তৈরি করা হয়।

এক্ষেত্রে কত শতাংশ বিশুদ্ধ সোনা মিলবে তার কোনো মানদ’ণ্ড নেই। অলংকার তৈরিতে সোনার দরের সঙ্গে মজুরি ও মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) যোগ করে দাম ঠিক করা হয়।

বিশ্বজুড়ে নভেল ক’রোনাভা’ইরাসে ম’হামা’রীর দ্বিতীয় স্তরের ধাক্কার আ’শঙ্কায় স্বর্ণের বাজার চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। মূল্যবান ধাতুটির দাম যে হারে বাড়ছে, তাতে শিগগিরই তা ইতিহাসের সর্বোচ্চ অবস্থানে পৌঁছে যেতে পারে বলে মনে করছেন খাতসংশ্লিষ্টরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here