ক’রোনাভা’ইরাসেের সং’ক্র’মণের পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য এবারের বাজেটে ৮ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন জ্বা’লানী ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

বুধবার (১০ জুন) দুপুরে, নিজ ম’ন্ত্রণালয়ে আসন্ন ২০২০-২০২১ বাজেটে বিদ্যুৎ বিভাগের প্রস্তাবিত বরাদ্দের বি’ষয়ে এক অনলাইন প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

এসময় তিনি আরও বলেন, বিশ্ব বাজারে জ্বা’লানি তেলের দাম কমলেও দেশে মজুদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তেলের দাম কমানো সম্ভব না।

এ সময় বিদ্যুৎ, জ্বা’লানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও জ্বা’লানি সরবরাহে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থায় গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে প্রস্তাবিত বাজেটে অর্থ ম’ন্ত্রণালয়ে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে ২৪৮০৩.৯৩ কোটি টাকা।

ইসিএ অর্থায়ন ১৮৩৭.৯৬ কোটি ও নিজস্ব অর্থায়ন ৯৫৫.৮৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ বিদ্যুৎ বিভাগে ৯৩ টি প্রকল্পের অধিনে ২৭৫৯৭.৭৩ কোটি টাকার বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে।

জ্বা’লানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীর আওতায় অর্থ ম’ন্ত্রণালয়ের কাছে ১৮৩৫.৬২ কোটি টাকা, গ্যাস উন্নয়ন তহবিল ২৬০.২৯ কোটি টাকা, নিজস্ব অর্থায়নে ১০৪২.৭৪ কোটি টাকা অর্থাৎ মোট ২৪টি প্রকল্পের বিপরীতে ৩১৩৮.৬৫ কোটি টাকা বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী, আজ স’চিবালয়ের অফিস কক্ষ হতে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে ‘বাজেট ও প্রস’ঙ্গিক কথা’ নিয়ে মত বিনিময়কালে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বৈশ্বিক ম’হামা’রি ক’রোনা ও এর প্রভাব বিবেচনা করেই ম’ন্ত্রণালয়ের কার্যক্রমে নানাবিধ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

রাজস্ব সংগ্রহ আশানুরূপ না হওয়ায় স’রকারের সহযোগিতা চাওয়া হবে।

তিনি বলেন, যাই হোক না কেন মুজিব বর্ষেই ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া হবে। গ্যাস ও তেল সঞ্চালন ব্যবস্থার উপর যে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে তা উল্লেখ করে তিনি বলেন, জ্বা’লানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেই এ সব প্রকল্প নেয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here