গোটা বিশ্ব যেখানে কার্যত ‘অ’বরুদ্ধ’ থেকেও নতুন করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশ ও ভারতে করোনার লক্ষণযুক্ত রো’গীদের চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে পা’লিয়ে যাওয়া ও স্বাভাবিক চলাফেরার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এমতাবস্থায় যাদের শরীরে করোনার লক্ষণ দেখা দিয়েছে, তাদের আপাতত ‘হোম কোয়ারেন্টিন’ করে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের মহারাষ্ট্র সরকার।
এ ছাড়া ওই ব্যক্তিদের আলাদাভাবে চিহ্নিত করে রাখতে তাদের বাঁ হাতে একটি বিশেষ ‘সিল’ মে’রে দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এনডিটিভি জানিয়েছে, মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্বাইয়ের এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভারতের তৃতীয় করোনা আ’ক্রান্ত রো’গী মা’রা গেছেন। সরকারি হিসাবে, দেশটিতে এখন পর্যন্ত আ’ক্রান্ত হয়েছেন ১২৫ জন। এর মধ্যে মহারাষ্ট্রেই রয়েছেন সর্বোচ্চ ৩৯ জন।
গত কয়েকদিনে রাজ্যের প্রায় সাত জন করোনা লক্ষণ যুক্ত রো’গী চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে পা’লিয়ে গেছেন বলে জানানো হয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে বলেছেন, ‘কেউ যদি কোভিড-১৯-এ আ’ক্রান্ত হন, সেটি তার অ’পরাধ নয়। তাদের অবশ্যই যথাযথ চিকিৎসা এবং মনস্তাত্ত্বিক সহায়তা দেওয়া প্রয়োজন। রাজ্যের জনগণের স্বার্থেই মহামারি নিরোধক আইন তৈরি করা হয়েছে এবং জে’লা প্রশাসনকে অবশ্যই এই রোগটি সম্পর্কে সচেতন থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ টোপ বলেছেন, ‘অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, করোনা আ’ক্রান্ত স’ন্দেহে কোনো ব্যক্তিকে তার নিজের বাড়িতে কোয়ারেন্টিন অবস্থায় থাকার পরামর্শ দেওয়া হলেও, তারা তা অমান্য করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে অন্যান্য মানুষজনের সঙ্গে মিশছেন। এর ফলে আরও বেশি করে করোনা সংক্রমিত হচ্ছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here