আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হেলমেট ছাড়া হোন্ডা চা’লানো দ’ণ্ডনীয় হলে হোন্ডা ছাড়া কেউ যদি খালি হেলমেট বহন করে, তাকে দ’ণ্ড দেওয়া যাবে না কেন? এরকম একটা কৌতুক চালু রয়েছে। কৌতুকটা যোগীর রাজ্যে সত্যি হয়েই ঘটল।

তবে এ ক্ষেত্রে গ্রে’প্তার হলো ছাগল, নিরীহ এক ছাগল। ছাগলটা রাস্তা দিয়ে হাঁটছিল, আচমকা পু’লিশ এসে গ্রে’প্তার করে বসল ওটাকে। অ’পরাধ? না, ছাগলটার মুখে দাড়ি ছিল, কিন্তু মাস্ক ছিল না। এই ভ’য়াবহ ক’রোনাকালে এমন ‘ভ’য়ঙ্কর’ অ’পরাধ করলে পু’লিশ তাকে ছাড়ে কী করে!

বিজেপির একনিষ্ঠ সমর্থক, উত্তর প্রদেশের গেরুয়াপরা মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের পু’লিশ তো তারা নাকি! সুতরাং ছাগলটার ‘ভ্যাঁ—ম্যা’ এসব কিছুকেই পাত্তা না দিয়ে সোজা থানায়।

কানপুরের বিকনগঞ্জের পু’লিশ ছাগলটিকে ধরে নিয়ে জিপে করে পু’লিশ স্টেশন নিয়ে যায়৷ ছাগলটির মালিক বি’ষয়টি জানতে পারলে তিনিও পু’লিশ স্টেশনে পৌঁছে যান৷

শেষ পর্যন্ত অনেক কাকুতি-মিনতি করার পর ছাগলটিকে মালিকের কাছে ছেড়ে দেয় পু’লিশ৷ পাশাপাশি তাকে সতর্কও করা হয় যে এভাবে রাস্তা ঘাটে ছাগল ঘুরে বেড়ালে চলবে না৷

এরপর থেকে যেন এমন ঘ’টনা না ঘটে৷ পু’লিশের তরফে যদিও জানানো হয়েছে, তারা টহল দেওয়ার সময় একটা ছেলেকে মাস্ক না পরে ছাগল হাতে রাস্তায় ঘুরে বেড়াতে দেখে৷

পু’লিশকে আসতে দেখেই ছাগল ফে’লে রেখে পালিয়ে যায় ছেলেটা৷ সে কারণেই পু’লিশ ছাগলটিকে পু’লিশ স্টেশনে তুলে নিয়ে আসে৷

কিন্তু ছাগলটিকে থানায় নিয়ে গিয়ে কী লাভ হলো, তা অবশ্য বলেনি পু’লিশ।

অবশ্য ভারতে ক’রোনার সং’ক্র’মণ বাড়ছে হু হু করে৷ সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে অনেক চেষ্টা করেও কোনও লাভ হচ্ছে না৷ এখনও এমন অনেকেই আছে, যারা রাস্তায় মাস্ক না পরেই বেরিয়ে পড়ছে৷

সং’ক্র’মণ থেকে বাঁচতে সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে না৷ সে জন্যই দেশের প্রায় সব রাজ্যেই আরো কড়া হতে বা’ধ্য হচ্ছে পু’লিশ৷ মাস্ক না পরলে বা লকডাউনের নিয়ম ভাঙলে অনেককেই গ্রে’প্তারও করছে৷

কিন্তু তাই বলে একটা ছাগলকেও গ্রে’প্তার করতে হলো তাদের!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here